১৯৭২ থেকে ১৯৭৫

(1)

রক্ষী বাহিনী বিভিন্ন মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে যেমন: বিচারবহির্ভূত হত্যা, জোর করে গুম, ডেথ স্কোয়াড দিয়ে গুলি করে হত্যা  এবং ধর্ষণ। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) তখন  দাবি করেছিল যে এর ৬০০০০ এরও বেশি সদস্যকে রক্ষী বাহিনী হত্যা করা হয়েছে।

অ্যান্টনি মাসকারেনহাস তাঁর বই Bangladesh: A Legacy of Blood "বাংলাদেশ: রক্তের উত্তরাধিকার" বইয়ে রক্ষী বাহিনীর কার্যক্রম বর্ণনা করে লিখেছেন:

Rakkhi Bahini, which roughly translated means National Security Force, was an elite para-military force whose members had to take oaths of personal loyalty to Mujib. Despite its high-sounding name, it was a sort of private army of bully boys not far removed from Nazi Brown shirts.

 

অর্থাৎ জাতীয় রক্ষী  বাহিনী ছিল এক অভিজাত প্যারা-সামরিক বাহিনী, যার সদস্যদের মুজিবের প্রতি ব্যক্তিগত আনুগত্যের শপথ নিতে হয়েছিল। এর বাগাড়ম্বরপূর্ণ নাম থাকা সত্ত্বেও এটি নাৎসি  বাদামী শার্ট এর কাছাকাছি ভাড়াটে গুন্ডা ছেলেদের নিয়েএকধরনের ব্যক্তিগত সেনাবাহিনী ছিল। 

তিন বছরের মধ্যে রক্ষা বাহিনী দ্বারা রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড প্রায় ৩০০০০ পৌঁছেছিল  রাজধানী ঢাকা মধ্যরাতের পরে একটি আনুষ্ঠানিক কারফিউ চালু করা হয়েছিল। প্রায় প্রতিটি রিকশা, ট্যাক্সি এবং প্রাইভেটকার রক্ষী বাহিনী কর্মীরা চেক করে তল্লাশি করতো।