শেখ মুজিব আমলে


1 বাংলাদেশে বিচার বহির্ভুত হত্যাকান্ড প্রথম শুরু হয় ১৯৭৪ সালে তৎসময়কার বিপ্লবী বাহিনীর প্রধান সিরাজ সিকদার কে হত্যার মধ্য দিয়ে। শেখ মুজিবের বিরুধীতার কারণে প্রকাশ্য দিন দুপুরে রাখি বাহিনী ৪৫৪ তারিখে সিরাজ সিকদার কে হত্যা করে এবং তার পরে শেখ মুজিব ৭৮৬৮৭ তারিখে সংসদে দাঁড়িয়ে দম্ভোক্তি করে বলেছিলেন " কোথায় আজ সিরাজ সিকদার" সূত্র:
2 ডাকসু নির্বাচনে কোনোদিন-ই ব্যালট বাক্স ছিনতাই হয় নাই বা নির্বাচনে কারচুপি হয় নাই। তবে ব্যালট বাক্স ছিনতাই ও ডাকসু নির্বাচলে প্রথম কারচুপি হয় ১৯৭২ সালে যা শেখ মুজিবের বড় সন্তান শেখ কামালের নেতৃত্বে হয়েছিল আর দ্বিতীয়বার হয়েছিল ২০১৯ সালে, যেখানে আওয়ামী শিক্ষকরা পর্যন্ত এর সাথে জড়িত ছিল। রোকেয়া হলের প্রভোস্টের রুমে ছাত্রলীগের প্রার্থীর পক্ষে সিল মারা ব্যালট পাওয়া গিয়েছিলো। সূত্র:
3 বিচারহীনতার সংস্কৃতি বা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ প্রথম চালু করেন শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে রক্ষী বাহিনী তৈরী করে এবং এই বাহিনী কে দায় মুক্তি দিয়ে ।
4 জাতীয় রক্ষী বাহিনী আইন (সংশোধিত),১৯৭৪ এর ৩ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, "এই আদেশ বা এর অধীন প্রণীত বিধি মেনে চলার জন্য সদা বিশ্বাসের দ্বারা সম্পন্ন বা উদ্দেশ্যপ্রাপ্ত যে কোনও কাজের জন্য বাহিনীর কোনও সদস্যের বিরুদ্ধে কোনও মামলা, মামলা বা অন্যান্য আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না।"
5 এই বিধান অনুসারে রক্ষী বাহিনী কর্তৃক যে কাউকে ইচ্ছামত গ্রেপ্তার করা যেতে পারে, তারা তাদের সমস্ত কার্যক্রমে যে কোনও বিচারিক তদারকি থেকে সুরক্ষিত থাকবেন। এই ক্ষতিপূরণ বিচার বিভাগকে কোনও আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ থেকে বিরত রেখেছে [৪] এই ক্ষতিপূরণ তাদের মরিয়া কর্মকে প্রশস্ত করেছে।
6 কোনো বৃদ্ধ ব্যক্তিকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনকারি কারা ? উঃ আওমীলীগ (২৪ মে ২০২০ কক্সবাজারের চকরিয়ার ঢেমশিয়ায় তুচ্ছ ঘটনা কে কেন্দ্র করে ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা আনসুর আলম এক বৃদ্ধ ব্যক্তি কে বিবস্ত্র করে। সূত্র: মানব জমিন ১০/০৬/২০২০ )
7 একজন মানুষের লাশের উপর নাচানাচি করার রেওয়াজ বাংলাদেশে ছিল না।কে চালু করেছে? উঃ আওমীলীগ (১/১১ সময় বিএনপির বিরুধ্যে আন্দোলন করতে গিয়ে বায়তুল মোকাররমের পাশে একজন নিরীহ মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করে ওই ব্যক্তির লাশের উপর আওয়ামী আন্দোলনকারীরা নাচানাচি করেছিল। সূত্র:
8 একজন মানুষের মৃত্যুর খবর জানার পর উল্লাস করে মিষ্টি খাবার রেওয়াজ বাংলাদেশে ছিল না।কারা চালু করেছিল ? উঃ আওমীলীগ। সূত্র:
9 একজন মানুষের কবরে হামলা করে দুআ সংবলিত বোর্ড ও নাম ফলক ভেঙে ফেলার পৈশাচিক মানসিকতা তো বাংলাদেশের মানুষের ছিল না। কারা শুরু করেছে এই ঘৃনীত কাজ ? উঃ আওয়ামীলীগ। সালাহ উদ্দিন কাদের চৌধুরীর কবরে এই কাজ করা হয়েছিল। সূত্র:
10 সংসদে সংসদে দাঁড়িয়ে মৃত মানুষের জন্য দুআ'র রেওয়াজ ছিল। সেই সেই সংসদে দাঁড়িয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমানের মৃত্যুর পর উনার অসুস্থতা নিয়ে অরুচিকর বক্তব্য কারা দিয়েছিলো ? উঃ আওয়ামীলীগ। সূত্র:
11 গুম হয়ে যাওয়া ইলিয়াস আলীর ছোট মেয়ের কান্নাকে অগ্রাহ্য করে কারা বলেছিলো ইলিয়াস আলী গুমের নাটক করছে। উনি লুকিয়ে আছেন বিএনপি নেত্রীর গুলশান অফিসে ? উঃ আওয়ামীলীগ। সূত্র:
12 কোনো বুদ্দিজীবির লাশ সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য শহীদ মিনারে নিতে কেউ কোনোদিন বাধা দেয়নি। কারা পিয়াস করিমের লাশ শহীদ মিনারে নিতে বাধা দিয়েছিলো ? উঃ আওয়ামীলীগ। সূত্র: